অনুসরন করুন :
আল-কুরআন

সূরা : আল-কাহাফ, ১৭-২৫ আয়াত

১৮. তুমি ধারণা করবে তারা জাগ্রত, অথচ তারা ঘুমন্ত। আমরা তাদের পাশে পরিবর্তন করতাম ডান দিকে এবং বাম দিকে আর তাদের কুকুরটি ছিলো সামনের পা দু’টি গুহা দ্বা...

বিস্তারিত
আল-হাদীস

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন

হযরত আবু হুরাইরা রা. হতে বর্ণিত আছে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি উত্তমরূপে অযূ করে এবং অযূক...

বিস্তারিত
সম্পাদকীয়

মানুষ আল্লাহর সেরা জীব

মানুষ আল্লাহর সেরা জীব। আশরাফুল মাখলুকাত। আল্লাহ মানুষ সৃষ্টি করার উদ্দেশ্য বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন, ‘আমি জীন ও ইনসানকে আমার ইবাদত করার জন্যেই শুধূমাত্র...

বিস্তারিত

সূরা : আল-কাহাফ, ১৭-২৫ আয়াত

(সংস্কার : ২৪০, ফেবুয়ারী :২০১৯ সংখ্যা)

১৮. তুমি ধারণা করবে তারা জাগ্রত, অথচ তারা ঘুমন্ত আমরা তাদের পাশে পরিবর্তন করতাম ডান দিকে এবং বাম দিকে আর তাদের কুকুরটি ছিলো সামনের পা দুটি গুহা দ্বারের দিকে প্রসারিত করে তাদের দিকে তাকিয়ে দেখলে তুমি পেছন ফিরে পালাবে এবং তাদের ভয়ে আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়বে

১৯. এভাবেই, আমরা তাদের জাগিয়ে তুলেছিলাম যেনো তারা পরস্পরের মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের একজন জিজ্ঞেস করেছিল, তোমরা এখানে কতোদিন অবস্থান করেছো? বাকিরা বললো: “আমরা এখানে একদিন বা আধা দিন অবস্থান করেছি তারা বললো: তোমাদের প্রভুই অধিক জানেন তোমরা কতদিন অবস্থান করছো? এখন তোমাদের একজনকে তোমাদের এই মুদ্রা নিয়ে শহরে পাঠাও, সে দেখুক কোন খাবার উত্তম এবং তা থেকে কিছু খাবার নিয়ে আসুক তোমাদের জন্যে আর সে যেনো সতর্কতা অবলম্বন করে এবং কিছুতেই যেনো তোমাদের সম্পর্কে কাউকেও কিছু জানতে না দেয়

২০.তোমাদের বিষয়টি যদি তাদের কাছে প্রকাশ হয়ে  পড়ে তাহলে তারা তোমাদের পাথর মেরে হত্যা করবে, অথবা তোমাদের ফিরিয়ে নেবে তাদের মিল্লাতে তখন আর তোমরা কখনো সফলতা অর্জন করবে না

২১. এভাবেই আমরা মানুষকে তাদের বিষয়টি জানিয়ে দিলাম, যাতে করে তারা জানতে পারে যে, আল্লাহর ওয়াদা সত্য এবং কিয়ামতের আগমনে কোনো সন্দেহ নেই যখন তারা তাদের কর্তব্য বিষয়ে বিতর্ক করেছিল, তখন অনেকে বলেছিল: ‘তাদের উপর একটি সৌধ নির্মাণ করো, তাদের প্রভুই তাদের বিষয়ে ভালো জানেন নিজেদের কর্তব্য বিষয়ে যাদের মত প্রবল হয়ে দেখা দিলো, তারা বললো: ‘আমরা অবশ্যি তাদের পাশে একটি মসজিদ নির্মাণ করবো

২২.কিছু লোক বলবে: ‘তারা ছিলো তিনজন এবং তাদের চতুর্থটি ছিলো তাদের কুকুর অজানা বিষয়ে অনুমান করে কিছু লোক বলবে: ‘তারা ছিল পাঁচ জন এবং তাদের ষষ্ঠটি ছিলো তাদের কুকুর কিছু লোক বলবে: ‘তারা ছিলো সাতজন এবং অষ্টমটি ছিলো তাদের কুকুর তুমি বলো: ‘তাদের সংখ্যা কতো তা আমার প্রভুই ভালো জানেন  অল্প কিছু লোক ছাড়া তাদের সংখ্যা কেউই জানেনা সাধারণ আলোচনা ছাড়া তুমি তাদের বিষয়ে বিতর্কে লিপ্ত হয়োনা আর তাদের বিষয়ে ওদের কাউকে কিছু জিজ্ঞাসাও করো না

২৩.তুমি কখনো কোনো বিষয়ে এভাবে বলোনা যে, ‘আমি তা আগামি কাল করবো

২৪.তবে এভাবে বলবে: ‘ইনশাআল্লাহ-যদি আল্লাহ্ চান আর যদি ভুলে যাও তবে তোমার প্রভুকে স্মরণ করবে এবং বলবে: ‘হয়তো আমার প্রভু আমাকে সত্যের নিকটে পৌঁছার পথ দেখাবেন২৫.তারা তাদের গুহায় অবস্থান করেছিল তিনশবছর আরো নয় বছর(ক্রমশ:)

0 | দেখেছেন : 254 |

সম্পর্কিত খবর

(আল-কাহাফ: ৩৭-৪৮)

৩৭. তার কথার প্রসঙ্গে তার সাথি তাকে বললো; ‘তুমি কি তোমার সেই মহান স্রষ্টার প্রতি কুফুরি করলে যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন মাটি থেকে, তারপর নোতফা (শুক্রানু) থেকে, তার পরে মানুষের আকৃতি দিয়ে পূর্ণাঙ্গ করে দিয়েছেন? ৩৮. (তুমি যাই বলোনা কেন) সেই মহান আল্লাহই কিন্তু আমার প্রভু। আমি আমার প্রভুর সাথে কাউকেও শরিক করি না। ৩৯. তুমি যখন তোমার বাগানে প্রবেশ করেছিলে, তখন কেন বললে না, ‘আল্লাহ যা চেয়েছেন তাই হয়েছে। আল্লাহর সাহায্য ছাড়া কারো কোনো ক্ষমতা নেই’? তুমি যদি ধনে জনে আমাকে তোমার চাইতে কম মনে করো, ৪০. তবে হয়তো আমার প্রভু তোমার বাগানের চাইতে উত্তম কিছু আমাকে দান করবেন এবং তোমার বাগান আসমান থেকে আগুন পাঠিয়ে জ্বালিয়ে দেবেন, যার ফলে বাগানটি উদ্ভিদ শূন্য মাঠে পরিণত হবে। ৪১. অথবা তোমার বাগানের পানি ভূ-গর্ভে তলিয়ে যেতে পারে এবং ‘তুমি আর কখনো পানির সন্ধান লাভ করতে সক্ষম হবেনা’।

সূরা: আম্বিয়া: ০৫ থেকে ১৮,

০৫. বরং (রাসূল) তাদের বলে: এগুলো হলো অলীক কল্পনা। হয় সে এগুলো উদ্ভাবন করে নিয়েছে, নয়তো সে একজন কবি। সুতরাং সে আমাদের কাছে কোন নিদর্শন নিয়ে আসুক, যেভাবে নিদর্শনসহ প্রেরিত হয়েছিল পূর্বের রাসূলরা।

সূরা: (ত্ব-হা , আয়াত নং: ১২৯ থেকে ১৩৫)

১২৯. তোমার প্রভুর পূর্ব বাণী এবং সময় নির্দিষ্ট করা না থাকলে তাদেরকে দ্রুত শাস্তি দেয়া অবশ্যক হয়ে যেতো। ১৩০. সুতরাং তারা যা বলে, সে সম্পর্কে তুমি সবর অবলম্বন করো এবং তোমার প্রভুর হামদসহ তসবিহ করো সূর্যোদয়ের আগে আর সূর্যোস্তের আগে। এছাড়া রাত্রিকালে তাঁর তসবিহ করো আর দিনের দুই প্রান্তে। আশা করা যায় এর ফলে তুমি হয়ে যাবে সন্তুষ্ট।

সূরা: (ত্বহা , আয়াত নং, ১১৫ থেকে ১২৮)

১১৫. ইতোপূর্বে আমরা আদমকে একটি নির্দেশ দিয়েছিলাম, কিন্তু সে ভুলে গিয়েছিল। আমরা তাকে পাইনি মজবুত সংকল্পের অধিকারী। ১১৬. আমরা যখন ফেরেশতাদের বলেছিলাম, তোমরা সাজদা করো আদমকে, তখন তারা সাজদা করলো, কিন্তু করেনি শুধু ইবলিস। সে অস্বীকার করলো। ১১৭. তখন আমরা বলেছিলাম, হে আদম! নিশ্চয়ই এ (ইবলিস) তোমার এবং তোমার স্ত্রীর শত্রু। সে যেনো তোমাদের জান্নাত থেকে বের করে না দেয়। দিলে তোমরা দুর্ভোগে পড়বে। ১১৮. তোমার জন্যে নিয়ম করে দেয়া হলো, তুমি জান্নাতে ক্ষুধার্তও হবেনা বিবস্ত্রও হবেনা। ১১৯. তুমি সেখানে পিপাসার্তও হবে না, রোদেও পুড়বেনা।